শুরুতে সবাই কে আমার সালাম এবং ফটোশপ tutorial সিরিজ এ ওয়েলকাম জানাইতেছি। আজকে আমরা দেখব কেমন করে ৩ টি ইমেজ দিয়ে একটি পিকচার বানানো যায়। এটি মূলত ব্যাবহার করা হয় বেশি ফেসবুক টাইমলাইনে। আপনারা যদি কেও টাইমলাইনের কাভারে এমন কিছু দিতে চান তাহলে মনে রাখবেন আপনাদের 851 px by 315 px  ক্যানভাস সাইজ ব্যাবহার করতে হবে। নিচের ছবিতে দেখে নিন আজকে আমরা কি বানাইতে যাইতেছি। যদি শিখতে আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে টিউটরিয়াল টি পড়তে থাকুন। আর হ্যাঁ আমিতো আপনাদের আগেই বলে রেখেছি যে আমি নিজে কোন টিউটরিয়াল  লিখি না আমি শুধু ইংলিশের বাংলা করে দেই কিন্তু তার মানে এই না যে আমি নিজে ট্রায় করি না। আমার নিজের বানানো এরকম ছবি দেখেতে চাইলে আপনারা কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমি আপলোড করে দিব। যাই হোক আসুন টিউট রিয়াল শুরু করা যাক,

 

photoshop template triptych

 

স্টেপ ১ -

নিচের ছবি অনুযায়ী একটি নতুন ফাইল ফটোশপে ওপেন করুন।আপনার ছবিতে যদি pixel দেয়া থাকে তাহলে ইঞ্ছিতে বদলাতে ভুলবেন না কিন্তু।

 

স্টেপ ২ -

লেয়ার প্যানেল এর নিচে ” create new fill or adjusment layer ” এ ক্লিক করে solid color সিলেক্ট করুন। সলিড কালারে ক্লিক করার পরে একটি ডায়লগ বক্স আসবে আপনি ঐখানে উপরের বামের একেবারে কোনায় ক্লিক করে সাদা কালার সিলেক্ট করতে পারবেন অথবা নিচের বক্সটিতে ‘ffffff’ লিখে সাদা কালারটি সিলেক্ট হয়ে যাবে।

 

22

স্টেপ ৩ -

এখন আমরা কিছু গাইড ব্যাবহার করব যাতে আমরা আমাদের ছবিগুলাকে প্লেস করতে সুবিধা হয়। আপনারা যারা জানেন না গাইড কি তাদের বলচ্ছি যে গাইড হচ্ছে ছবির উপরে আঁকা কয়েকটি লাইন যেগুলা আপনার ইমেজ এ কখনো সেভ হবে না শুধু আপনি যখন কোন একটি ছবি বানাবেন তখন আপনাকে দেখাবে ইমেজ এর উপরে। আপনি চাইলেই গাইড যেকোনো সময় অন অফ করে পারবেন।  গাইড ব্যাবহার করা হয় তখন যখন আপনাকে একটি জিনিশ হিসাব করে বানাতে হবে। ধরেন আপনি চাইতেসেন একটি ইমেজ প্লেস করতে আপনার ক্যানভাস এর ঠিক মাঝখানে তখন আপনাকে গাইড এর সাহায্য নিতে হবে। এটি photoshop এর অনেক useful একটি টুল যা অনেক কঠিন কাজকে সহজ করে তোলে। যাই হোক, আমাদের এখন গাইড ব্যাবহার করতে হবে যাতে আমাদের ইমেজ গুলা আমরা একি সাইজ এ সমান এবং সুন্দর ভাবে বসাতে পারি।

প্রথমে আমরা রুলার একটিভেট করি। Command+R অথবা Menu>views>rulers ব্যাবহার করে রুলার একটিভেট করে নিন। রুলারের উপরে ডাবল ক্লিক করে দেখে নিন আপনার রুলার ইঞ্ছিতে আছে কিনা। যদি না থাকে ইঞ্চিতে চেঞ্জ করে নিন। আপনি যদি y axis (virticle) এ গাইড আঁকতে চান তাহলে বামের রুলারে ক্লিক করে গাইড বের করে এনে 1.5″ তে ছেরে দিন। y axis এ 1.5″, 9.5″, 11″, 19″, 20.5″ এবং 28.5″ এ ৬ টি লাইন আঁকুন।  X axis (horizontal)  এ 1.5″ এবং 13.5″ ২ টি লাইন আঁকুন। এখন দেখুন আপনার ইমেজ নিচের ছবির মত দেখাচ্ছে কিনা।

কথাগুলা নিশ্চয় আপনাদের মাথার উপর দিয়া গেছে :p অথবা বুঝতে কষ্ট হইতেসে। আসুন আমরা দেখি কিভাবে same জিনিশটা অন্য ভাবে করা যায়। আপনারা নিশ্চয় জানেন যে horizontal এবং virticle কি ? যারা জানেন না তারা গুগল মামার সাহায্যে জেনে নিন। তারপর Menu>View>New guide  এ ক্লিক করুন এবং horizontal এর জন্য 1.5″ এবং 13.5″ এই সাইজ গুলি ব্যাবহার করুন এবং virticle এর জন্য 1.5″, 9.5″, 11″, 19″, 20.5″ এবং 28.5″ এই ৬ টি সাইজ ব্যবহার করুন।

 

স্টেপ ৪ -

এখন আমরা শেপ মাস্ক create করব কিন্তু এটা করার আগে আমাদের আগে কিছু জিনিশ চেক করে নিতে হবে। প্রথমে দেখুন আপনার ব্যাকগ্রাউন্ড এবং foreground কালার সাদা কালো কিনা যদি না হয়ে থাকে আপনার কীবোর্ড এ ” D ” চাপুন।

 

এখন আপনারা টুলবারে ‘Rectangle tool” এ ক্লিক করুন। মনে রাখবেন আপনার টুল যাতে “Shape Layers” এ সিলেক্ট করা থাকে। নিচের ছবি দেখে নিন। আপনারা খেয়াল করে দেখুন আমরা যে গাইড তৈরি করেছি তা ৩ ভাগে বিভক্ত। দেখেই মনে হছে যে ৩ টা ছবি বসানোর জন্য জায়গা বানানু হয়েছে। এখন আপনারা Rectangle tool ব্যাবহার করে বামের গাইডটির ভিতরে একটি শেপ আঁকুন।

 

স্টেপ ৫ -

শেপটির নামের উপরে ডাবল ক্লিক করে নতুন নাম দিন “image left”

 

স্টেপ ৬ -

নতুন একটি গ্রুপ ওপেন করুন এবং এটির নাম ও “image left” দিন। আপনার “image left” লেয়ারটি গ্রুপ এর ভিতরে ঢুকান।

 

স্টেপ ৭ -

স্টেপ ৪ থেকে ৬ আবার রিপিট করুন কিন্তু নাম ভিন্ন দিবেন। মাঝখানের বক্স এর নাম “Image Middle” এবং ডানের ইমেজ এর নাম “Image Right” দিন। অথবা আপনারা চাইলে নিজের ইচ্ছা মত কোন একটা নাম দিতে পারেন।

 

 

আপনার ক্যানভাস এখন নিচের ছবির মত দেখাচ্ছে কিনা চেক করুন।

 

 

স্টেপ ৮ -

এখন আমরা নিজের পছন্দ অনুযায়ী ছবি কালো বক্স গুলার উপরে বসাব। ছবি বসাতে আপনি আপনার ছবি ফাইল থেকে মাউস দিয়ে ধরে টেনে এনে ক্যানভাস এর উপরে ছেরে দিতে পারেন অথবা Menu> File> Place এ যেয়ে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী ছবি সিলেক্ট করতে পারেন। এখন দেখবেন আপনার ছবি আপনার ক্যানভাস এর উপরে মাঝখানে দেখা যাচ্ছে। আপনাকে আপনার ছবি মাউস ধরে বামের কালো বক্সটির উপরে নিতে হবে এবং কালো বক্স এর সমান করে resize করে নিতে হবে। তারপর enter ক্লিক করুন।

 

স্টেপ ৯ -

যেহেতু এই ছবি আমরা বামের বক্স এর উপরে ব্যাবহার করেছি সেহেতু আপনার নতুন ছবিটিকে image left  গ্রুপ এর ভিতরে ঢুকাতে হবে।

 

স্টেপ ১০ -

ছবিটাকে আপনাদের শেপ লেয়ার উপরে প্লেস করতে হবে। নিচের ছবিতে দেখুন। তারপর রাইট ক্লিক করে “Create Clipping Mask” এ ক্লিক করুন।

 

স্টেপ ১১ (অপশনাল) -

এই টিউটরিয়ালে যেই ছবিগুলা ব্যাবহার করা হয়েছে ঐখানে সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড খুব একটা ভালো যায় না তাই “Color Fill 1″ এর বামের thumbnail  এ ডাবল ক্লিক করলে একটি বক্স আসবে ঐখানে বাদামি রঙের একটি কালার দেয়া হয়েছে।

 

স্টেপ ১২ -

স্টেপ ৮, ৯, ১০ আবার রিপিট করুন।

 

স্টেপ ১৩ -

এখন আমরা ছবিতে কিছু stroke দিব। উপরের ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন যে ছবিতে সাদা রঙের border দেয়া আছে। আপনারা যেই ছবি ব্যাবহার করবেন ওইটাতে হয়ত কোন border থাকবে না।যদি থাকে আর আপনারা ওই border  না চান তাহলে ctrl+t দিয়ে ইমেজ টিকে হাল্কা ভাবে বড় করে নিন যাতে বরডারটি crop হয়ে যায়।

বামের ছবিতে Stroke অ্যাড করতে নিচের দেখানো লেয়ারে ডাবল  ক্লিক করুন।

এখন আপনারা নিচের ছবি দেখে দেখে stroke সেটিং করুন এবং কালো রঙের কালার thumbnail এ ক্লিক করে “ffffff”/white কালারটি সিলেক্ট করুন।  অথবা আপনারা আপনাদের নিজের ইচ্ছা মত stroke দিতে পারেন।

 

স্টেপ ১৪ -

সমান stroke অন্য ছবি গুলায় দিতে আপনার লেয়ার এ রাইট ক্লিক করুন এবং “copy layer style” এ ক্লিক করুন।

ফাইনাল স্টেপ -

তারপর “middle image” লেয়ার এ ক্লিক করে রাইট ক্লিক করুন এবং “paste layer style” দিন। সমান ভাবে “right image” এও এভাবে stroke দিন।

 

এবার দেখুন আপনার ছবি নিচের ছবির মত অথবা দেখাচ্ছে নাকি। আপনার ছবি হয়ত এই ছবির মত সুন্দর হবে না অথবা বেশি সুন্দর হবে। কিন্তু সুন্দর করাটা আসল বেপার না আসল বেপার হচ্ছে জানাটা যে আসলে কোনটা কিভাবে কাজ করে। যখন আপনার ফটোশপের বেসিকটা জেনে যাবেন তখন দেখবেন আপনি এর চাইতে ও আরও সুন্দর সুন্দর ইমেজ বানাতে পারবেন। ৩টি ইমেজ এর জায়গায় ৫ টি ব্যাবহার করতে পারবেন অথবা ব্যাকগ্রাউন্ড এ texture  দিতে পারবেন।

 

 

আমাদের আজকের টিউটরিয়াল এর সমাপ্তি এইখানে। আশা করি আপনাদের ভালো লেগেছে। আপনাদের ছবি কিরকম হয়েছে আমাকে দেখাতে ভুলবেন না। ফেসবুকে upload দিয়ে কমেন্টে লিংক দিয়ে দিবেন আমি দেখে নিব। কষ্ট করে এত লম্বা একটি টিউটরিয়াল পরার জন্য thanks।

 

 

 

 

 

ট্যাগসমূহ:

লেখক: ইরা আহমেদ

উনারে অনেক ভালোবাসি আর ভালোবাসি শিখাইতে...।। মানুষকে হাসাইতেও অনেক ভালো লাগে :) ফটোশপিং করা ব্লগ এ টিউটরিয়াল লেখা এবং উনার সাথে অনেক অনেক গল্প করা আমার শখ, অভ্যাস অথবা আমার দৈনন্দিন জীবন বলতে পারেন। ( University khular age porjonto :P )



কথোপকথন শুরু হয়ে গেছে! আপনিও যোগ দিন- ইতোমধ্যে 6 টি মন্তব্য করা হয়েছে :

  1. শোভনon July 31, 2012, at 2:41 pm Reply

    কিন্তু এত কষ্ট না করে একটা কালো ব্যাকগ্রাউন্ড নিয়ে তিনটা ইমেজ ড্র্যাগ করে দিলেই তো হয়?

    • ইরা আহমেদon July 31, 2012, at 2:53 pm Reply

      হে হে হে আফনে আর মুই একি কিসিমের মানুষ আইলসা। অবশ্যই পারবেন ঐরকম করতে কিন্তু বেপারটা খালি ইমেজ এর না বেপারটা ফটোশপ শিখার। এইখানে আমি অনেক কিছুই ব্যাবহার করছি যেইটা বিগিনার দের জন্য জানা জরুরি :)

  2. মেহেদিon November 15, 2012, at 7:42 pm Reply

    আপনাদের প্রতিটি পোস্টই খুবই সুন্দর। অন্ধকার রাতের ঝকঝকে শরতের আকাশে যতগুলো তারা দেখা যায়, তার চেয়ে বেশি ধন্যবাদ , এমন awesome post এর জন্য ।

    • ইরা আহমেদon November 18, 2012, at 4:18 pm Reply

      হি হি ধন্যবাদ আপনারে আপনার সুন্দর কমেন্ট এর জন্য :)

  3. Rongon January 25, 2013, at 6:25 pm Reply

    May b Facebook Timeline Resulation is 851*315 px….. Not 850..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *