সবাই কেমন আছেন ? আশা করি ভালো আমিও অনেক ভালো আছি আল্লাহর রহমতে।আজকে আমরা টিউটরিয়ালে দেখবো যে কিভাবে একটা ছবিতে glow এফেক্ট দেওয়া যায়। নিচের ছবি দেখুন,

Before

0.0

 

After,

0.1

 

আসুন তাইলে দেখা যাক ছবিতে এমন একটি এফেক্ট কিভাবে দেওয়া যায়। আমি আগেই বলে নেই আপনাদের যে এই এফেক্ট কিন্তু আমার দেওয়া না এইটা একটা ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া এবং আমি শুধু এইটার ইংলিশ টু বাংলা করেছি মাত্র :)

স্টেপ ১ – ছবির কপি

প্রথমে ছবিটাকে ফটোশপে ওপেন করুন নিন। তারপর ctrl+j চেপে ছবির একটা duplicate লেয়ার তৈরি করে জারে আমরা দেখতে পারি যে আমাদের original image কেমন ছিলো আর এফেক্ট দেওয়ার পরে আমাদের ইমেজ কেমন হইছে।

photoshop-cs3-layers-palette

 

  স্টেপ ২ – Smart filter

এবার আমাদের layer 1 যে লেয়ারটি আছে সেই লেয়ার টিকে smart filter এ পরিণত করতে হবে। এখন কথা হলো যে smart filter কি জিনিস ? এইটা বুঝার সব চাইতে বুঝার উপায় হইলো ধরেন আপনার একটি লেয়ার আছে। আপনি ২০% ব্লার দিলেন আপনার লেয়ারে। তারপর আরও অনেক এফেক্ট দিয়ে আপনি যখন ছবিটা বানানো মুটামুটি শেষ করে ফেলছেন তখন আপনার মনে হলো যে আপনার ব্লার দেওয়া ইমেজে ব্লারটা একটু বেশি লাগতেছে। কিন্তু তখন আর আপনার এই ব্লার বদলানোর কোনো অপশন থাকে না। কিন্তু আপনি যদি কোনো একটা লেয়ার কে smart filter হিসাবে ব্যাবহার করেন তাইলে আপনার যখন ইচ্ছা তখন ঐ লেয়ারের যেকোনো এফেক্ট বদলাতে পারবেন। আরও ভালো বুঝতে হলে আপনাদের অবশ্যই বাদ বাকি টিউটরিয়াল দেখতে হবে। যাই হোক,
আপনাদের লেয়ারটিকে smart object এ পরিণত করতে Menu>filter>convert into smart object অথবা right click on the layer>convert to smart object দিলেও চলবে।

convert-for-smart-filters

এখন একটা warning বক্স শো করবে আপনারা অবশ্যই এতে ok ক্লিক করবেন এবং চাইলে don’t show again টিক দিতে পারেন যাতে পরবর্তীতে এই ওয়ার্নিং না আসে।

smart-filter-warning

এখন ভাববেন যে কি করলাম এইটা কিছুইতো হইলো না ইমেজে :P আসলে হইছে কিন্তু আপনারা খেয়াল করেননি হয়তো। আপনাদের লেয়ার পেলেট এর দিকে খেয়াল করুন দেখবেন যে আপনার লেয়ারে একটি ছোট thumbnail আসছে। এর মানে হচ্ছে যে আমাদের লেয়ারটি এখন smart object এ আছে।

smart-object-preview

  স্টেপ ৩ – ব্লার এফেক্ট

এখন আমরা লেয়ারে একটু ব্লার এফেক্ট দিবো। ব্লার এফেক্ট দিয়ে Menu>filters>blur>motion blur ক্লিক করুন। এবার motion bar এর dialogue box এ নিচের ছবি অনুযায়ী সেটিং দিন।

photoshop-motion-blur-filter

Angle – এই অপশনটি আপনার এই যে লম্বা লম্বা লাইন গুলা দেখতেছেন তা কোন দিক দিয়ে যাবে তা বদলানো হয় এইখানে। আপনারা চাইলে ১২০ অথবা ১৮০ ডিগ্রি দিয়ে দেখতে পারেন যে আপনাদের ছবি তে কি হয়।

distance – আপনার ছবি কোতো টুকু ব্লার করতে চান তা এইখানে বদলানো যায়। ১ – সব চাইতে কম ব্লার আর ২০০০ – সব চাইতে বেশি ব্লার।

এবার ok ক্লিক করুন দেখবেন যে আপনার ছবি নিচের ছবির মতো দেখাবে।

image-motion-blur

এখন আমাদের ছবি দেইখা মনে হইতেছে কেউ ছবিটারে তেল দিয়ে ঘসতে ঘসতে এই অবস্থা কইরা ফেলছে। কিন্তু একটু পরেই আমরা দেখবো যে এইটা কিভাবে ম্যাজিক এর মতো কাজ করে :D

 স্টেপ ৪ – blend mode

এবার আপনার ব্লার দেওয়া লেয়ারটির blend mode normal থেকে hard light দিন। তারপর দেখবেন আপনার ছবিতে already অন্য রকম একটা এফেক্ট চলে আসছে।

hard-light-blend-mode

এবার দেখুন আপনার ছবি নিচের ছবির মতো দেখাচ্ছে কিনা!

image-hard-light

hard light ব্লেন্ড মোডটি খালি আপনার লেয়ারই ব্লেন্ড করে না বরং আপনার ছবিতে এক ধরনের contrast তৈরি করে। আপনারা নিশ্চয় brightness and contrast কি জানেন। এই মোড ইমেজ এর saturation ও বারায়।

আরেকটি জিনিস লক্ষ করুন যে আপনার লেয়ার এর উপর smart filter_motion blur নামে কিছু একটা দেখতে পাচ্ছেন। এইটা কিন্তু আপনার লেয়ারটকে smart না করলে এই অপশনটি পেতেন না। motion ব্লার এর উপরে ক্লিক করলেই দেখতে পারবেন যে আবার সেই dialogue বক্স টি আসছে যেইখানে angle and distance বদলানো যায়।

motion-blur-smart-filter

  স্টেপ ৫ – লেয়ার ১ এর কপি তৈরি।

এবার আপনাদের লেয়ার ১ এর আরেকটা কপি তৈরি করুন ctrl+j দিয়ে। নিচের ছবিতে দেখতেই পাচ্ছেন যে ctrl+j ক্লিক করার পর নতুন একটি লেয়ার কপি হইছে।

layer-1-copy

এবার আমাদের নতুন লেয়ার এর motion blur এর কিছু অপশন আমরা change করবো। তার করতে লেয়ার ১ কপি এর motion blur লেখাটির উপর ডাবল ক্লিক করুন।

edit-motion-blur-2

তারপর নিচের ছবি অনুযায়ী সেটিংস বদলান।

motion-blur-2angel – 45

Distance – 355

এবার দেখুন আপনার ছবি নিচের ছবির মতো হয়েছে কিনা। আপনারা নিশ্চয় বুঝতে পারছেন যে এইখানে কি করা হয়ছে। আমরা angle টাকে বদলে দেওয়ায় আমাদের ছবির বাম দিক থেকে আলাদা একটা এফেক্ট তৈরি হয়েছে। । নিচের ছবি দেখুন,

image-motion-blur-2

  স্টেপ ৬ -  লেয়ার এক এর কপি এর আরেকটা কপি

লেয়ার ১ কপি নামের লেয়ারটির আরেকটা লেয়ার কপি করুন ctrl + j দিয়ে। এবার আমাদের লেয়ার পেলেট নিচের ছবির মতো দেখাবে,

layer-1-copy-2

আবারো আমরা motion blur এ ক্লিক করে আমাদের সেটিংস বদলে নেই।

layer-4-motion-blur

নিচের ছবি দেখে দেখে সেটিংস্‌ বদলান।

motion-blur-3

এবার দেখুন যে ৩ বার আমাদের ব্লার অপশন বদলানোর পর আমাদ্র ছবি দেখতে কিরকম দেখাচ্ছে,

image-motion-blur-3

  ফাইনাল স্টেপ – gradient effect

এটি হচ্ছে আমাদের ফাইনাল স্টেপ । প্রথমে আপনার সব গুলা লেয়ার সিলেক্ট করুন এবং একটি গ্রুপ তৈরি করুন। একের অধিক লেয়ার সিলেক্ট করতে shift ক্লিক করুন দেখবেন যে একটি লেয়ার নয় আপনি যে যে লেয়ারেই ক্লিক করবেন লেয়ার সিলেক্টেড হবে।

select-three-layers

এবার ctrl + G চাপুন। এটি আপনার সব গুলা লেয়ার একটু গ্রুপে রাখবে যাতে আপনার বুঝতে সুবিধা হয় অথবা একটি লেয়ার অন্য লেয়ার এর সাথে মিশে না যায়। এটি যদিও এই লেয়ার গুলার ক্ষেত্রে খুব একটা প্রযোজ্য না কারণ এইখানে খুব একটা বেশি লেয়ার নাই যে একটা আরেকটার সাথে মিক্স হয়ে যাবে। কিন্তু gradient effect দিতে হলে আমাদের গ্রুপ করাটা জরুরী।

photoshop-layer-group

নিজে ইচ্ছা মতো group 1 লেখাটির উপরে ডাবল ক্লিক করে আপনার গ্রুপ এর একটি নাম দিয়ে দিবেন যাতে বুঝতে পারেন যে কি আছে এই গ্রুপ এর মধ্যে। এবার আমরা আমাদের গ্রুপে একটি লেয়ার মাস্ক অ্যাড করবো। লেয়ার মাস্ক কিভাবে অ্যাড করবেন তা নিচের ছবিতে লক্ষ করুন।

add-layer-mask

যদিও আমরা মাস্কটিকে আমাদের ডকুমেন্টে দেখতে পাচ্ছি কি না কিন্তু আমরা জানি যে আমাদের গ্রুপে একটি লেয়ার মাস্ক অ্যাড করা হয়েছে কারণ লেয়ার মাস্ক গ্রুপ লেয়ার এর সাথেই অ্যাড হয়।

layer-mask-added

tools pallet থেকে gradient tool সিলেক্ট করুন

photoshop-gradient-tool

এবার দেখেবন যে উপরে কিছু অপশন আছে তা নিচের ছবি দেখে দেখে বদলে নিন

select-black-to-white-gradientএবার গ্র্যাডিয়েন্ট টুল এর shape বদলান।

choose-radial-gradient

 

এবার দেখুন আপনার লেয়ার এর মাস্ক সিলেক্ট করা আছে নাকি। মাস্ক সিলেক্ট করা না থাকলে সিলেক্ট করে নিন তারপর নিচের ছবির মতো করে আপনার gradient cursor ছবির মাঝখান থেকে উপরে ডানে কোণার দিকে  নিন।

draw-gradient

এখন যদি আমরা মাস্ক এর দিকে খেয়াল করি দেখবেন যে আমাদের লেয়ারেটিতে একটি radial gradient তৈরি হয়েছে।

draw-gradient-preview

এবং এরই মধ্যে দিয়ে শেষ হয়ে গেলো আমাদের টিউটরিয়াল বানানো। নিচের ছবি হচ্ছে আমাদের ফাইনাল ইমেজ। আশা করি আপনাদের অনেক অনেক ভালো লেগেছে। আপনাদের কোনো কমেন্ট অথবা প্রবলেম হলে আমাকে অবশ্যই জানাবেন আমি ট্রায় করবো আপনাদের যত তারাতারি পারি রিপ্লায় দেয়ার :)

 

0.1

ট্যাগসমূহ:

লেখক: ইরা আহমেদ

উনারে অনেক ভালোবাসি আর ভালোবাসি শিখাইতে...।। মানুষকে হাসাইতেও অনেক ভালো লাগে :) ফটোশপিং করা ব্লগ এ টিউটরিয়াল লেখা এবং উনার সাথে অনেক অনেক গল্প করা আমার শখ, অভ্যাস অথবা আমার দৈনন্দিন জীবন বলতে পারেন। ( University khular age porjonto :P )



কথোপকথন শুরু হয়ে গেছে! আপনিও যোগ দিন- ইতোমধ্যে 3 টি মন্তব্য করা হয়েছে :

  1. sujonmajion September 24, 2013, at 6:09 am Reply

    আমি আপনার ব্লগ অনেক আগে থেকেই পড়ি। কারন আমি অনেক শিখতে চাই, যা আপনার টিউটোরিয়াল থেকে ৭০% পাই। একারনেই সাবক্রাইব করে রেখেছি যেন নতুন টিউটোরিয়াল আসলে আপডেট পাই। আজকের টিউটোরিয়ালটা আমার অনেক ভাল লেগেছে কাজেও আসবে বেশ। ধন্যবাদ এরকম মজার মজার টিউটোরিয়াল উপহার দেয়ার জন্য।

    • ইরা আহমেদon September 24, 2013, at 12:15 pm Reply

      jene valo laglo bhai :)

      • sujonmajion March 10, 2014, at 8:09 am

        আপু, আমার লিঙ্কটা রেমুভ করতে সাহায্য করবেন?
        ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *